অনুদানের আশায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপচে পড়া ভিড় শিক্ষার্থীদের

আবদুল কাদির, গৌরীপুর(ময়মনসিংহ) থেকেঃ করোনাকালে সব শিক্ষার্থীকে ১০ হাজার টাকা সরকারি অনুদান দেওয়ার গুজবে কয়দিন যাবত ময়মনসিংহের গৌরীপুরে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ঢল নেমেছে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। প্রতিষ্ঠান প্রধানদের কাছ থেকে প্রত্যয়নপত্র নিতে স্কুল, কলেজ ও মাদরাসাগুলোতে ছিল শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উপচে পড়া ভিড়।

ফটোকপি ও অনলাইন সার্ভিসের দোকানগুলোতেও পা ফেলার জায়গা নেই।সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) থেকে গত ১৮ জানুয়ারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, শিক্ষক-কর্মচারী ও ছাত্র-ছাত্রীদের অনুদানসংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। এতে বলা হয়, দুরারোগ্য ব্যাধি ও দৈব দুর্ঘটনার শিকার শিক্ষক-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা অনুদানের জন্য আবেদন করতে পারবে।

এ ক্ষেত্রে দুস্থ, প্রতিবন্ধী, গরিব ও অনগ্রসর ছাত্র-ছাত্রীরা অগ্রাধিকার পাবে। এই অনুদানের আবেদনের সময়সীমা রবিবার (৭ মার্চ)পর্যন্ত। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ-মাধ্যমে সবাইকে ১০ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়ার গুজব ছড়িয়ে পড়ায় গৌরীপুর উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রত্যয়নপত্রের জন্য হুড়োহুড়ি শুরু হয়ে যায়। কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ এই বিষয়ে অফিসিয়াল কোন পরিপত্র পাওয়া কথা অস্বীকার করে।

কিন্তু শহরে সকাল থেকেই প্রত্যয়নপত্র নেওয়ার জন্য ভিড় করে হাজার হাজার শিক্ষার্থী। দুপুর ১২টার দিকে গৌরীপুর সরকারি ও মহিলা ডিগ্রি কলেজ, সরকারী রাজেন্দ্র কিশোর হাই স্কুল,গৌরীপুর পাইলট বালিক উচ্চ বিদ্যালয়,নরুল আমিন খান উচ্চ বিদ্যালয়সহ ইউনিয়ন পর্যায়ের স্কুলগুলোতে গিয়ে দেখা গেছে,শত শত ছাত্র-ছাত্রী ভিড় করেছে প্রত্যয়নপত্র নেওয়ার জন্য।

কলেজ ক্যাম্পাস, ক্লাসরুম, একাডেমি ভবনের বারান্দা থেকে শুরু করে কোথাও তিল ধারণের ঠাঁই নেই। এই পরিস্থিতিতে কলেজের অধ্যক্ষ, বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠান প্রধান ও অন্য শিক্ষকরা পড়েছেন বিপাকে। আর এদিকে শনিবার বিকাল থেকে উক্ত নির্দেশনার আবেদনের সার্ভার বন্ধ রয়েছে। আইটি ব্যবসায়ী আইনুল হক জানান শতবার চেষ্টা করেও আমরা সার্ভারে ঢুকতে পারছি না। এতে শিক্ষার্থীদের মাঝে হতাশা দেখে যায়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*