ছোট ছেলের নিরাপত্তার বিষয়ে যা বললেন আবরারের বাবা

নিরাপত্তার শঙ্কায় শেষ পর্যন্ত ঢাকা ছেড়েছেন বুয়েট হত্যাকাণ্ডের শিকার আবরার ফাহাদের ছোট ভাই আবরার ফাইয়াজ। ঢাকা কলেজের একাদশ শ্রেণির এই শিক্ষার্থী তার প্রতিষ্ঠান থেকে ছাড়পত্র নিয়ে চলে গেছেন নিজের এলাকার প্রতিষ্ঠান কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে। ফাইয়াজের ঢাকা থেকে কুষ্টিয়া চলে যাওয়ার বিষয়ে তার বাবা বরকত উল্লাহ বলেছেন, ‘দুই ছেলের একজন আমাদের ছেড়ে চলে গেছে। ওকে দেখে শুনে আগলে রাখার জন্য বড় ভাই (আবরার) ছিল। সে-ই যখন চরম নৃংশসতার শিকার হলো, সেখানে আর কার ভরসায়ই বা ওকে (ফাইয়াজ) ঢাকায় রাখবো?’

মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) ফাইয়াজ বিশেষ ব্যবস্থায় ঢাকা কলেজ থেকে ছাড়পত্রের আবেদন করলে তা মঞ্জুর করে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বোর্ড। বিষয়টি জানিয়েছেন ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক মো. হারুন-অর-রশিদ। কলেজ পরিদর্শক বলেন, তার আবেদেনের পরিপ্রেক্ষিতে বোর্ড ছাড়পত্র অনুমোদন করেছে। বিশেষ ব্যবস্থায় আবেদন করলে এদিনই তার আবেদন মঞ্জুর করা হয়।

এ বিষয়ে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ কাজী মনজুর কাদির জানান, ‘আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ইতোমধ্যেই কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ কর্তৃপক্ষ বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় নিয়ে তাকে ভর্তির জন্য ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখন অপেক্ষায় আছি ঢাকা কলেজ থেকে ছাড়পত্রের কপি হাতে পেলেই ফাইয়াজের ভর্তির প্রাথমিক কাজ সম্পন্ন হবে।’

ফাইয়াজের বাবা রবকত উল্লাহ বলেন, ‘দুই ছেলের একজন আমাদের ছেড়ে চলে গেছে। এই অবস্থায় সার্বক্ষণিক নিরাপত্তাজনিত অজানা শঙ্কা মাথায় নিয়ে জীবন-যাপন আরও কষ্টসাধ্য হয়ে উঠেছে। নিরাপত্তাহীনতার সঙ্গে আবার যুক্ত হয়েছে ফাইয়াজের মা রোকেয়া খাতুনের একাকিত্ব। সব বিষয়ই ভেবে, ওর মা এবং পরিবারের অন্য স্বজনদের ইচ্ছায় এমন সিদ্ধান্ত নিতে হলো।’

সোমবার (১৪ অক্টোবর) বিকেলে ফাহাদের বাবা বরকত উল্লাহ, মা রোকেয়া বেগম এবং ছোট ভাই আবরার ফাইয়াজ গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠানেও প্রধানমন্ত্রী জানান, আবরার ফাহাদ হত্যার দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পর থেকে তার ছোট ভাই ফাইয়াজের নিরাপত্তা নিয়ে আলোচনা চলছিল। উদ্বেগ প্রকাশ করছিলেন স্বজনরাও।

এর পরিপ্রেক্ষিতে গত রোববার (১৩ অক্টোবর) ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, আবরার ফাহাদের ছোট ভাই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো সহযোগিতা চাইলে তাকে নিশ্চয়ই সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত সরকার। সে যদি মনে করে যে, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা দরকার, নিশ্চয়ই সরকার সেটা ভেবে দেখবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*