‘হটলাইন কমান্ডো’ নিয়ে আসছেন সোহেল তাজ

বাংলাদেশ ও আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে সব সময় পাশে থাকবেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ। তবে এই মুহূর্তে তার সক্রিয় রাজনীতি করার সময় হবে না বলে জানিয়েছেন তিনি।সামাজিক বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরা এবং সুস্বাস্থ্যের প্রতি নজর দিতে মানুষকে সচেতন করতে একটি টেলিভিশন শো নিয়ে আসছেন সোহেল তাজ। লাইফস্টাইল–বিষয়ক এ রিয়্যালিটি শোর নাম ‘হটলাইন কমান্ডো’।

আজ বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে সোহেল তাজ এ শোর ঘোষণা দেন। সোহেল তাজ মানুষের জীবনযাপন, খাদ্যাভ্যাস ও সুস্থতা নিয়ে কথা বলেন। এছাড়া সামাজিক বিভিন্ন সমস্যা ও অসংগতির দিকও তুলে ধরেন।একটি টিভি প্রোগ্রামের আয়োজক ও পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারও যদি আপনাকে রাজনৈতিক কোন পদে চান তখন কি করবেন এমন প্রশ্নের জবাবে সোহেল তাজ বলেন, আমাদের পরিবার বিগত দিনের মতো সব সময় আওয়ামী লীগ ও দেশের দুঃসময়ে পাশে ছিল এবং থাকবে। দেশের ও দলের দুঃসময়ে আমি নিজেও পাশে থাকব। আসলে রাজনীতিতে আমি নেই কিন্তু আমি রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। রাজনীতি আমাদের রক্তে। এ দেশ আমাদের রক্তে সুতরাং রাজনীতির বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই।

এই মুহূর্তে আমার সক্রিয় রাজনীতি করার সময় হবে না কারণ এই অনুষ্ঠানের প্রজেক্টটা অনেক সময় নিয়ে নিবে।প্রোগ্রামটি দুর্নীতি বিরুদ্ধে কোনো বার্তা দেয় নি কেন জানতে চাইলে সোহেল তাজ বলেন, যেকোন দেশ উন্নতি করতে চাইলে উন্নয়নের সবচেয়ে বড় বাধা দুর্নীতি। শহীদ তাজউদ্দীন আহমেদের সন্তান হিসেবে বঙ্গবন্ধু আদর্শের সৈনিক হিসেবে আমি চাই বাংলাদেশ থেকে দুর্নীতি বন্ধ হোক। কিন্তু আমার এ প্রোগ্রামটা হচ্ছে সামজিক বিষয়বস্তু নিয়ে, এ প্রোগ্রামটা সোনার মানুষ তৈরি করার।

তিনি বলেন, সমাজ প্রস্তুত না থাকলে আপনি কী রাজনীতি করবেন? রাজনীতি কাকে নিয়ে করবেন? সমাজকে গড়তে পারলে মানুষকে তৈরি করতে পারলে অটোমেটিক সব সমাধান চলে আসে। এটাই আমার রাজনীতি করার রাস্তা। সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে আমার প্রোগ্রামটাও একটা অবদান রাখবে।সোহেল তাজ বলেন, ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বঙ্গবন্ধু স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার জন্য দরকার সোনার মানুষ। আর সোনার মানুষ গড়তে আমার এ উদ্যোগ।

তিনি আরও বলেন, রাজনীতির বাইরে থেকেও মানুষের জন্য কিছু করার ইচ্ছা থেকেই এ পদক্ষেপ। বহুদিন ধরেই দেশের মানুষের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য, জীবন যাপনের অভ্যাস ও ধরণ, সচেতনতা ও দায়িত্ববোধের বিষয়গুলো নিয়ে ভাবছিলাম। সে ভাবনা থেকেই জন্ম, লাইফ স্টাইল বিষয়ক রিয়েলিটি শো ‘হটলাইন কমান্ডো’র।

তিনি আরও যোগ করে বলেন, ‘ছোট বেলার থেকে আর্মি ট্রেনিং আর কমান্ডো স্টাইল আমার পছন্দের ছিল। সে সময় স্কুলের বন্ধুরা আমাকে কমান্ডোও বলে ডাকত। আর ওই সময়তেই আর্নল্ড শোয়ার্জনেগারের কমান্ডো মুভি মুক্তি পায়। তাই সব মিলিয়ে আমার প্রোগ্রামের নাম করা হয়েছে ‘হটলাইন কমান্ডো’।

সোহেল তাজ বলেন, ‘হটলাইন কমান্ডো’ টিম নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে গিয়ে নানা শ্রেণী-পেশার মানুষের দরজায় কড়া নাড়বো। জানতে চাইবেন তাদের জীবন যাপনের অভ্যাস ও ধরণ, স্বাস্থ্যগত সমস্যার কথা, খাদ্য অভ্যাস, বাসস্থান, কর্ম পরিবেশসহ নানা সমস্যার কথা।

তিনি আরও বলেন, এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের ভেতরে যদি সচেতনতা বৃদ্ধি পায়, জীবনধারায় পরিবর্তন আসে তাহলেই আমাদের উদ্দেশ্য সফল হবে এবং আমরা ভবিষ্যতে আরাে উৎসাহ পাবে। দেশকে ফিট রাখতে দেশের মানুষের ফিট থাকতে হবে।

আপনার এই আন্দোলনটি পাড়া-মহল্লায় চর্চার জন্য একটি শক্তভিত্তি দরকার। তার জন্য আপনি কোন সাংগঠনিক কাঠানো করছেন কী না এমন প্রশ্নের জবাবে সোহেল তাজ বলেন, প্রথম প্রশ্নের সাথে আমি একমত না। কারণ হচ্ছে একজন ‘মা’ তখনই শিশুর কাছে আসবে যখন শিশুটি কাঁদবে। যদি আমরা না কাদি হয়ত পরিবর্তন আসবে না। আমাদের নিজের অবস্থান থেকেই পরিবর্তণ শুরু করতে হবে। পাশাপাশি আমরা বিভিন্ন স্কুল কলেজে বিভিন্ন স্থানে আমরা রিয়েলিটি শোর আয়োজন করবো, ক্যাম্পের আয়োজন করবো। এটি শুধু টিভি প্রোগ্রামে সীমাবদ্ধ থাকবে না। সাংগঠনিক ভিত্তি হচ্ছে মানুষের ভিতরে যদি আমরা কিছু জাগাতে পারি সেটাই হচ্ছে সাংগঠনিক ভিত্তি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি জানান, বাংলাদেশে প্রতিবছর অসংক্রামক রোগের (নন কমিউনিকিকেল ডিজিস) কারণে প্রায় ৬০ ভাগ মানুষ মৃত্যবরণ করেন। যা ১০০ ভাগ প্রতিরোধযোগ্য। কেবল জীবন অভ্যাস পরিবর্তনের মাধ্যমে এসব রোগ থেকে মুক্তি সম্ভব। এই মুক্তির পথগুলোই আমরা খোঁজার চেষ্টা করবো।সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সোহেল তাজ এবং তার টিমের বিশেষ সদস্যরা মানুষকে সচেতন করবেন এবং হাতে কলমে সহায়তা করবেন জীবন যাপনের সহজ ও কার্যকর পথ বেছে নিতে।

অনুষ্ঠানকে প্রাণবন্ত ও তথ্য সমৃদ্ধ করতে নলেজ পার্টনার হিসেবে দেশের বিশেষায়িত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও বিশেষজ্ঞ ব্যক্তির সহযযোগিতা নেওয়া হবে। এছাড়াও টিম ‘হটলাইন কমান্ডো শো’য়ের পাশাপাশি বিভিন্ন জেলা উপজেলার স্কুল কলেজে অ্যাকটিভিশন করবে। সচেতনতা বৃদ্ধির কাজ করবে। চাইবে মানুষের ভেতরে সাংগঠনিক ভিত্তি গড়ে উঠুক।

গত কয়েক মাসে নিজের ফেসবুক পেজে এ অনুষ্ঠান ঘিরে কয়েকটি ভিডিও আপলোড করেন তিনি। যা নিয়ে নানা মহলে আলোচনা- সমালোচনা তৈরি হয়। এ সংবাদ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে সব কিছুর অবসান হলো।সংবাদ সম্মেলনে সোহেল তাজের পারিবারিক সদস্য ছাড়াও পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান র‌্যানকন গ্রুপের ম্যানেজিং ডিরেক্টর রৌম্য রউফ চৌধুরী, অনুষ্ঠান নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান কারুজ কমিউনিকেশনের প্রধান কাউসার মাহমুদসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আগামী সেপ্টেম্বর থেকে ফিট নেশন মিডিয়ার ব্যানারে লাইফ স্টাইল বিষয়ক রিয়েলিটি শো ‘হটলাইন কমান্ডো’ নিয়ে টিভি পর্দায় হাজির হবেন সোহেল তাজ। বেসরকারী টেলিভিশন আরটিভি ১২ পর্বের এ অনুষ্ঠানটি প্রচারিত হবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*